Spread the love

ঠাকুর বংশের বৌ ঠান জ্ঞানদানন্দিনী দেবী স্বামীর কর্মসূত্রে মুম্বাই গিয়ে সিন্ধি মহিলাদের শাড়ি পরার ধরনে আকৃষ্ট হয় বঙ্গ ললনাদের উপহার দিলেন আধুনিক শাড়ির ফ্যাশন। যুগের দাবিতে বাংলায় পোশাক শিল্পীরা সেই শাড়িকে দিয়েছেন নানা রূপ। এমনই এক পোশাক শিল্পী ইরানী মিত্র। শাড়ি নিয়ে তাঁর কল্পনার জগতে সৃষ্টি করে চলেছেন নিত্য নতুন রূপ। ইন্দো ওয়েস্টার্ন শাড়ির আবিষ্কার তাঁকে এনে দিয়েছে খ্যাত, যশ , সম্মান। বাংলা চলচ্চিত্রের শিল্পীরা তাঁর শাড়ির নান্দনিক শিল্পে অভিভূত। ২০০৮ এর সেই সন্ধিক্ষণ থেক সেই ট্র্যাডিশন সমানে চলেছে। সোমবার সন্ধ্যার দক্ষিণ কলকাতায় নিজের স্টুডিওতে তিনি মিলিত হলেন সাংবাদিকদের সঙ্গে । উপলক্ষ বাংলা পাঁজির ডাইরি নিয়ে। তিনবছর আগে ভেবেছিলেন এমন কিছু উপহার মডেল , চলচ্চিত্র জগতের অভিনেত্রী প্রযোজক ও পরিচালক বন্ধুদের ও মেকাপ আর্টিস্টদের দিতে চান যা বাজারে মেলে না। ইরানী মিত্রের মা চাইতেন বছরের নতুন পাঁজি। মাথায় এলো ডাইরিতে যদি পাঁজি সংযোজন করা যায়। তারপর সেই কল্পনা বাস্তবে রূপ নিল। সাড়া পরে গেল তাঁর পরিচিত মহলে। এবারেও প্রতিষ্ঠিত ও নবাগত মডেল ও মেকাপ আর্টিস্টদের তিনি ডাইরিতে স্থান দিলেন। তাঁদের সম্বর্ধনায় তাঁদের হাতে তুলে দিলেন স্মারক ও ডাইরি। ডাইরি প্রকাশ করলেন পরিচালক রাজা সেনের স্ত্রী পাপিয়া সেন সম্বর্ধিত হলেন মডেল ও মেকাপ আর্টিস্টরা। তালিকায় ছিলেন, মহুয়া রায়, রেহান চৌধুরী , দিব্যজ্যোতি বিশ্বাস, শালিনী ভট্টাচার্য, সাগরিকা গুপ্তা , রিক্তা আচারিয়া, পারমিতা চ্যাটার্জি , রাজলক্ষ্মী, শুভশ্রী সেন, নীলাঞ্জনা রায় সরকার,চন্দ রায,সোর্যেন্দু, আকাশ, সায়নী সম্প্রীতি ও সীমা দাস।